Friday , April 16 2021

নারী মুয়াজ্জিনের আজান-ইমামতীতে আদায় হলো নামাজ

জার্মানিতে নারী মুয়াজ্জিনের আজান-ইমামতীতে আদায় হলো নামাজ। বার্লিনের ‘ইবনে রুশদি গ্যাটে’ মসজিদে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষ্যে ছিলো ভিন্নধর্মী এ আয়োজন।

চার বছর আগে, মসজিদটি নির্মাণ করেন সেয়রান আতিস। তিনি বলেন, ইসলামের অন্যতম স্তম্ভ- নামাজ আদায়ের সময় তিনি বহুবার হয়রানির শিকার হয়েছেন জার্মানিতে। সেই বাধা ভাঙ্গতেই তার এ উদ্যোগ। নারীদের অধিকার এবং সমতার জন্যে ৫৭ বছর বয়সী এই আইনজীবী করছেন লড়াই।

যার ধারাবাহিকতায়, মসজিদটিতে নারী-পুরুষ উভয়েই নামাজ আদায় করতে পারেন। আতিসের বিশ্বাস, প্রার্থণার সময় আল্লাহ নারী-পুরুষে ভেদাভেদ করেন না; তাহলে সমাজে কেনো এই বিভক্তি?

আরো পড়ুন: পেঁয়াজের বাম্পার ফলনে শৈলকুপার কৃষকের মুখে হাসি ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার পাইকপাড় গ্রামে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে পেঁয়াজ। ক্ষেতেও রয়েছে, যা কৃষক বাড়িতে এনে স্তূপ করে রাখছেন বিক্রির আশায়।

পেঁয়াজ সংরক্ষণের কোন ব্যবস্থা না থাকায় অল্প টাকায় বিক্রি করতে বাধ্য হন উপজেলার কৃষকরা। স্থানীয়রা বলছেন, এ উপজেলায় পেঁয়াজের প্রচুর চাষ হয়ে থাকে। সবচেয়ে বেশি চাষ হয় পাইকপাড়া গ্রামে।

কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, শৈলকুপা উপজেলায় চাষযোগ্য জমি আছে ২৮ হাজার ৫শ হেক্টর। তারমধ্যে এ বছর পেঁয়াজের চাষ হয়েছে ৭ হাজার ৮শ ৯০ হেক্টর জমিতে।

এরমধ্যে শুধু পাইকপাড়া গ্রামে চাষ হয়েছে ৩৫০ হেক্টর জমিতে। বারি-১, লাল তীর, লাল তীর কিংসহ বেশ কয়েকটি জাতের পেঁয়াজ বেশি চাষ হচ্ছে। এবছর অনেক কৃষক সুখসাগর জাতও চাষ করেছেন।

পাইকপাড়া গ্রামের কৃষক রবিউল ইসলামের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, বাড়ির বাইরে মেয়েরা পেঁয়াজ থেকে গাছ কেটে আলাদা করছেন। বাড়ির মধ্যে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে পেঁয়াজ। ঘর-বারান্দা কোথাও একটু খালি জায়গা নেই। শোবার ঘরের খাটের নিচেও পেঁয়াজ।

তিনি জানান, এবছর ৮ বিঘা জমিতে পেঁয়াজের চাষ করেছেন তিনি। এসব জমিতে চাষ করেছেন হাইব্রিড লাল তীরকিং জাত। যার মধ্যে অর্ধেক জমির পেঁয়াজ বাড়িতে নিয়ে এসেছেন। এখনও মাঠে পেঁয়াজ রয়েছে।

তিনি আরও জানান, প্রতি বিঘায় সব মিলিয়ে ৩৫ থেকে ৪৫ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। এক বিঘায় (৪০ শতাংশ) ১শ ২০ মণ পেঁয়াজ পাচ্ছেন। যা ১৪ শত টাকা প্রতি মণ দরে বিক্রি করে ১ লক্ষ ৬৮ হাজার টাকা ঘরে আসবে।