Friday , April 16 2021

সাত বস্তা ভর্তি বিপুল পরিমাণ ইয়াবা ও পৌনে ২ কোটি টাকাসহ আ’ট’ক ৪!!

কক্সবাজারে পৃথক অ’ভিযানে ১৪ লাখ ইয়াবা, পৌনে ২ কোটি টাকাসহ ৪ জনকে আ’ট’ক করেছে পু’লিশ। এরমধ্যে মঙ্গলবার (৯ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে কক্সবাজার সদরের চৌফলদ’ন্ডী ঘাট থেকে সমুদ্র পথে পাচার হয়ে আসা ৭ বস্তা ভর্তি ১৪ লাখ ইয়াবা উ’দ্ধার করে জে’লা গোয়েন্দা (ডিবি) পু’লিশের সদস্যরা। এসময় আ’ট’ক করা হয়েছে ২ জনকে। জ’ব্দ করা হয়েছে পাচার কাজে ব্যবহৃত ট্রলারটিও।

ওই অ’ভিযানের সূত্র ধরে সন্ধ্যায় আ’ট’ক এক জনের বাড়ি থেকে নগদ ১ কোটি ৭০ লাখ ৬৮ হাজার ৫ শত টাকা উ’দ্ধার করা হয়। এসময় আ’ট’ক করা হয় ২ জনকে।

আ’ট’ককৃতরা হলেন- কক্সবাজার পৌরসভা’র উত্তর নুনিয়ার ছড়া মো. নজরুল ইস’লামের ছে’লে মো. জহিরুল ইস’লাম ফারুক (৩৭), একই এলাকার মো. মোজ্জাফরের ছে’লে মো. নুরুল ইস’লাম বাবু (৫৫), ফারুকের শাশুড় আবুল হোসেনের ছে’লে আবুল কালাম (৫৫) ও আবুল কালামের ছে’লে শেখ আবদুল্লাহ (২০)।

কক্সবাজারের পু’লিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান জানান, গো’পন সংবাদের ভিত্তিতে ডিবি পু’লিশের একটি টিম জে’লের ছদ্মবেশে অ’ভিযান শুরু করে। অ’ভিযানে চৌফলদ’ন্ডী ঘাটের কাছাকাছি সমুদ্রে একটি ট্রলার থেকে ৭ টি বস্তায় ১৪ লাখ ইয়াবা উ’দ্ধার করা হয়। এসময় আ’ট’ক করা হয় ফারুক ও বাবুকে। পরে ২ জনের দেয়ার তথ্যের ভিত্তিতে পু’লিশের এক দল উত্তর নুনিয়ারছড়ায় আবারো অ’ভিযান চালায়। অ’ভিযানে ২ টি বস্তায় পাওয়া যায় ১ কোটি ৭০ লাখ ৬৮ হাজার ৫০০ টাকাসহ বিভিন্ন চুক্তিপত্র, ব্যাংকের চেক। এসময় ফারুকের শ্বশুর ও শ্যালককে আ’ট’ক করা হয়।

পু’লিশ সুপার এ চালানটি কক্সবাজারের সর্ববৃহৎ ইয়াবার চালান উল্লেখ করে বলেন, ফারুক ফিশিং ট্রলারের আড়ালে মা’দকের ব্যবসায় জ’ড়িত। ফারুকের মতো বেশ কিছু মা’দক ব্যবসায়ীর সন্ধান পেয়েছে পু’লিশ। এরা শক্তিশালী সিন্ডিকেট গঠন করে নানা কৌশলে ইয়াবা কারবার চালাচ্ছে। পু’লিশের গোয়েন্দা ইউনিট এ ব্যবসায়ীদের নজরদারিতে রেখেছে। এ রকম ৮০ জনের একটি তালিকা তৈরি করে পু’লিশ কাজ চালিয়ে যাচ্ছে বলে জানান তিনি।

পু’লিশ সুপার আরও জানান, ইয়াবা ও টাকা উ’দ্ধার পৃথক ঘটনা। তাই পৃথক আইনে এ মা’মলা দায়ের করা হবে। এতে জ’ড়িত আরও অনেকের নাম পাওয়া গেছে। যাদের বি’রুদ্ধে ত’দন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।