Wednesday , June 16 2021

প্রবাসীর স্ত্রী’কে নিয়ে উধাও, ধ’রিয়ে দিতে পারলে ৫০ হাজার টাকা পুরষ্কার!

চট্টগ্রামের মীরসরাই উপজে’লার বারইয়াহাট পৌর বাজারের ব্যবসায়ী মোশাররফ হোসেন প্রবাসীর স্ত্রী’কে নিয়ে গত ৩ সপ্তাহ ধরে উধাও রয়েছেন। এই ঘটনায় দুই থা’নায় পৃথক অ’ভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। খুঁজে না পাওয়ায় তাদের উভ’য়ের পরিবারই উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে। সন্ধান চাইছে উভ’য় পরিবার। মোশাররফের ৪ বছরের কন্যা সারাদিন বাবাকে খুঁজছে বলে জানান তার স্ত্রী’ ফারহানা আহমেদ।

মীরসরাই উপজে’লার জো’রারগঞ্জ ও পাশ্ববর্তী ফেনী থা’নায় দায়ের করা জিডি সূত্রে জানা গেছে, ফেনীর ফরহাদ নগর গ্রামের ভোরবাজারের পাশ্ববর্তী সৌদি প্রবাসী
শহিদ উল্লাহ’র স্ত্রী’ নাজমা বেগমকে (৩৬) চৌদ্দ বছরের একটি পুত্র সন্তানসহ বছর খানেক আগে বিয়ে করেন সৌদি প্রবাসী শহিদ উল্লাহ। ইতিপূর্বে তিনজনের সাথে সংসার করেন নাজমা। কিন্তু বছর না যেতেই একই গ্রামের এক কন্যা সন্তানের জনক মোশাররফ হোসেনের (৩৫) সাথে পালিয়ে যান নাজমা বেগম।

ব্যবসায়ী মোশাররফ হোসেনের স্ত্রী’ ফারহানা আহমেদ জানান, তার স্বামী বারইয়াহাটে হার্ডওয়ারের ব্যবসা করেন। বাবার দেয়া ব্যবসার পুঁজি ও ভাইদের থেকে ধার করা অন্তত ৫০ লক্ষ টাকা আর পাশের গ্রামের নাজমা ও তার প্রবাসী স্বামীর ২০ ভরি স্বর্ণালংকার ও অর্ধকোটি নগদ টাকা নিয়ে দু’জনে পালিয়ে গেছেন।

নাজমা’র প্রবাসী স্বামী শহিদ উল্লাহ বলেন, নাজমাকে বিয়ের পর শপথ করিয়েছিলাম কোনো দিন আমাকে ছেড়ে আবার পালাবে না বলে। কিন্তু নিষ্ঠুর এই মহিলা আমাকে ছেড়ে গেলো। তবে তিনি এখনো ফিরে এলে তাকে গ্রহণ করবেন বলে জানান। এসময় তাদের ধরিয়ে দিতে পারলে ৫০ হাজার টাকা পুরষ্কারের ঘোষণা দেন তিনি।

আবার মোশাররফের স্ত্রী’ ফারহানা আহমেদ বলেন, আমাদের কন্যা মাদিহা (৪) প্রতিদিন বাবার জন্য কাঁদছে। সন্তানের কা’ন্না আর আর্তনাদের দিকে তাকিয়ে আমি আমা’র স্বামীকে ফিরে পেতে চাই।এই বিষয়ে জো’রারগঞ্জ থা’নার ত’দ’ন্ত কর্মক’র্তা এসআই শরিফুজ্জামান বলেন, আম’রা দু’জনেরই খোঁজ করছি। আবার যে কেউ আমাদের কাছে তাদের খোঁজ দিতে পারলে আম’রা সর্বাত্মক সহযোগিতা করবো।

ছিলেন একজন নাইটগার্ড এখন হলেন মেয়র
তানোর মুন্ডুমালার নবনির্বাচিত মেয়র সাইদুর রহমান। পেশায় একটি কলেজের নৈশপ্রহরী। কলেজ থেকে নির্বাচন করার জন্য ছুটি নিয়েছিলেন ১৫ দিন। পৌর আওয়ামী লীগে ছিলেন সাংগঠনিক সম্পাদক পদে। দল নিষেধ সত্ত্বেও নির্বাচনে অটল ছিলেন তিনি। এজন্য দল থেকে বহিষ্কারও হতে হয়েছে তাকে। তারপরও অদম্য ইচ্ছা শক্তির জেরে তৃতীয় ধাপে অনুষ্ঠিত পৌর নির্বাচনে মুন্ডুমালা পৌরসভায় মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন সাইদুর রহমান।

আওয়ামী লীগ থেকে মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী শহিদুজ্জামান শহিদকে ৬১ ভোটে হারিয়ে হয়েছেন পৌরসভা’র নির্বাচিত মেয়র।সাইদুর রহমান মুন্ডুমালা মহিলা ডিগ্রি কলেজের নৈশপ্রহরী পদে চাকরি করেন। ১৫ দিনের ছুটি নিয়ে তিনি ভোটে এসেছিলেন। পেশায় নৈশপ্রহরী হলেও আওয়ামী লীগে সক্রিয় ছিলেন সাইদুর।

মেয়র পদে নির্বাচনের জন্য আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন। মনোনয়ন না পেয়ে দল থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দেন। নির্বাচনে থাকায় পৌর আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে তাকে বহিষ্কারের কথাও জানানো হয়।

নির্বাচনে সাইদুর রহমান জগ প্রতীকে ৫ হাজার ৪৫৯ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আমির হোসেন আমিন পেয়েছেন ৫ হাজার ৩৯৮ ভোট। বিএনপির প্রার্থী ফিরোজ কবির ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩ হাজার ৩৮১ ভোট।

শনিবার (৩০ জানুয়ারি) রাতে উপজে’লা নির্বাচন অফিসার ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার মো. কা’ম’রুজ্জামান মুন্ডুমালার নির্বাচনের এই ফলাফল ঘোষণা করেন।নবনির্বাচিত মেয়র সাইদুর রহমান বলেন, ‘পেশায় আমি সামান্য নৈশপ্রহরী হতে পারি কিন্তু মানুষের জন্য আমা’র ভালোবাসা অফুরন্ত। তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত ক’রো’নাকালে এলাকার মানুষের পাশে থাকা ও তাদের সহযোগিতায় এগিয়ে যাওয়া।’

তিনি বলেন, ‘যতটুকু পেরেছি সাধ্যমতো এলাকার মানুষের সাহায্যে এগিয়ে গেছি। মানুষ ভালোবেসে আমাকে পৌর মেয়র করেছেন। এজন্য কৃতজ্ঞ তাদের প্রতি।’

দলের বিষয়ে সাইদুর রহমান বলেন, ‘ইচ্ছা ছিল দল থেকে মনোনয়ন নিয়ে মানুষের সেবা করার। কিন্তু দল থেকে মনোনয়ন চেয়েও পাইনি। তাই পদত্যাগ করার ঘোষণা দিয়েছি। কারণ, দল থেকে না পারি মেয়র হয়ে অন্তত মানুষের সেবা করতে পারব বলে আশা করি।’