Friday , April 16 2021

মধ্যবয়সী নারীরা বয়সে ছোট ছেলেদের প্রতি আ’কৃষ্ট হন যে কা’রণে

প্রেম এবং যু’দ্ধে সব কিছুই ন্যায্য। সত্যি বলতে প্রেম একটি সুন্দর অনুভুতি যা কোন বিভেদ বা সীমানা জানে না। প্রেমের ক্ষেত্রে ব’য়স একটি অজুহাত মাত্র, কারন প্রেম ব’য়স মানে না।এই গতানুগতিক ব্যবধানে প্রেম এখনকার গল্পের ক্ষেত্রে একটা বোঝার সামিল। কিন্তু এই ক্ষেত্রে আপনার জীবন স’ঙ্গিটি যদি আপনার থেকে ব’য়সে বড় হয় তবে ?

তখন আপনার সব থেকে বড় শ’ত্রু হয়ে উঠবে আপনার সমাজ। সমাজ কখনই গতানুগতিক চিন্তাধারার বাইরে প্রেমকে ভাবেনি। তাই আপনি নিশ্চিত থাকুন কেউ খোঁচা দিক বা না দিক, সমাজ আপনাকে খোঁচা দেবেই।চলুন তবে জেনে নি সেই কারন গুলো যেই জন্য মে’য়েরা কম বয়েসি ছেলেদের প্রেমে পড়ে থাকে –

১। ব’য়স্ক পুরু’ষদের কাঁধে দায়িত্ব প্রচুর থাকে, নিজের ভবি’ষ্যৎ জীবন নিয়ে এদের মাথায় চিন্তা বাসা বাঁধে। সংসারের সমস্ত রকম সুবিধের কথা এরা খুব ভালো করেই বিচার করে থাকে। ফলে অন্যান্য উদ্দিপনা এদের কাছে ফালতু সময় ন’ষ্ট, কিন্তু কম ব’য়সি ছেলেরা সব সময় উদ্দিপনায় ম’ত্ত। ফলে এদের দিকেই আকৃ’ষ্ট হয় ম’হিলারা।

২। কম ব’য়সি ছেলেরা খোলা মনের এবং তুলনা মুলক কম জটিলতা জানে। ফলে এই জিনিস গু’লি ম’হিলাদের কম ব’য়সি ছেলদের প্রতি আকৃ’ষ্ট হওয়ার আরেক কারন।৩। তরুন ছেলে পুলেরা সাধারনত কম অভিজ্ঞ, যার ফলে এরা কোন কিছুর বিচার নিয়ে খুব একটা মাথা ঘামায় না। চুল চেরা বিচার এদের ধাতে সয় না। অন্য দিকে বেশি ব’য়সের পুরু’ষরা সম্প’র্কের চুল চেরা হিসেব চায় ফলে মুশকিলটা হয় সেখানেই।

৪। কম ব’য়সি ছেলেরা অনেক বেশি রোম্যান্টিক হওয়ার ক্ষ’মতা রাখে কিন্তু, যা ম’হিলা দের উৎসাহিত করে।৫। বেশি ব’য়সের ম’হিলাদের যেহেতু আগে থেকেই কেই না কেউ থাকে, ফলে এদের প্রাক্তন এদের নতুন সম্প’র্কে বিচ্ছিন্ন ভাবে জড়িয়ে থাকে। কিন্তু কম ব’য়সি ছেলেরা এই সম্প’র্কের গুরুত্ব দিয়ে থাকে।

৬। অল্প ব’য়সি স’ঙ্গির স’ঙ্গে বেশি ব’য়সি প্রে’মিকাকেও অল্প ব’য়সি মনে করায়, যা তাদের এক অন্যতম উন্মাদনার কারন।৭। যুবক স’ঙ্গী সমস্ত রকম নতুন কাজ খুব মজা ও আ’গ্রহের সাথে করে থাকে যা এক অন্য জগতে নিয়ে যায় বেশি ব’য়সি ম’হিলাদের।৮। যুবকদের শা’রীরিক গঠন বেশি ব’য়সি পুরু’ষদের তুলনায় তুলনামুলক বেশি আ’কর্ষণীয়, এইটিও একটি কারন।

৯। তাছাড়া যেহেতু বেশি ব’য়সি ম’হিলারা অনেক অভিজ্ঞ,তাই তাদের গ্যান কম ব’য়সি ছেলেদের কাছে মুল্যবান, তাই তারা মন দিয়ে স’ঙ্গিনীর কথা শুনে থাকে।১০। তরুনদের সাহসিকতায় মেশানো জীবন ম’হিলাদের আরও আকৃ’ষ্ট করে ছেলেদের প্রতি।